30 লাখ বেতনের চাকরি ছেড়ে নেমেছিলেন ব্যবসায়, সিঙারার দোকানে এখন প্রতিদিন আয় হয় 12 লাখ

Samosa Singh: দেশে এমন অনেকেই রয়েছেন যাঁরা চাকরিতে বিশ্বাসী নয়। অথচ ব্যবসা করে তাঁরা অনেক বড় জায়গায় চলে গিয়েছেন। মুকেশ আম্বানি, রতন টাটা ছাড়াও এমন অনেক খুচরো সাধারণ ব্যবসায়ী রয়েছেন,…

Written by Laxmishree Banerjee

Published on:

Samosa Singh: দেশে এমন অনেকেই রয়েছেন যাঁরা চাকরিতে বিশ্বাসী নয়। অথচ ব্যবসা করে তাঁরা অনেক বড় জায়গায় চলে গিয়েছেন। মুকেশ আম্বানি, রতন টাটা ছাড়াও এমন অনেক খুচরো সাধারণ ব্যবসায়ী রয়েছেন, যাঁদের রোজগারের গল্প মাঝেমধ্যেই ভাইরাল হয়। যেমন, চাকরি ছেড়ে সিঙ্গারা বিক্রি করে আজ প্রতিদিন 12 লাখ টাকারও বেশি রোজগার করেন বেঙ্গালুরুর এই দম্পতি। কিন্তু এমনটা কীভাবে সম্ভব সেটাই ভেবে পান না অনেকেই। আসুন জেনে নেওয়া যাক বিস্তারিত।

বেঙ্গালুরুর এই দম্পতি নাম নিধি সিং এবং শিখর বীর সিং। জানা গিয়েছে, এই দম্পতি নিজেদের উচ্চ বেতনের চাকরি ছেড়ে ব্যবসা শুরু করার জন্য নাকি বাড়িও বিক্রি করে দিয়েছিলেন। কিন্তু এই উচ্চ শিক্ষিত পেশাদার পরিবার নিজেদের আরামদায়ক চাকরি এবং উচ্চ-বেতনের প্যাকেজ ছেড়ে স্টার্ট-আপে উদ্যোগী হওয়া নিয়ে, অনেক কথাও শুনতে হয়েছিল এই দম্পতিকে। কিন্তু সেই সমস্ত গুজবকে ঝেড়ে ফেলে আজ সমাজে সুপ্রতিষ্ঠিত এই কাপল (Samosa Singh)।

কে এই নিধি সিং এবং শিখর বীর সিং?

শিখর বীর সিং এবং নিধি সিংয়ের বায়োটেকনোলজিতে বি-টেক করার সময় হরিয়ানায় প্রথম দেখা হয়েছিল। শিখর পরে হায়দরাবাদের ইনস্টিটিউট অফ লাইফ সায়েন্সেস থেকে MTech করে বায়োকনের প্রধান বিজ্ঞানী পদে নিযুক্ত হন। এদিকে নিধিও নিজের কেরিয়ারের যাত্রা কর্পোরেট জগতের মাধ্যমে। গুরুগ্রামের একটি ফার্মা কোম্পানিতে 30 লক্ষ টাকা বেতনের প্যাকেজ নিয়ে ততদিনে সফল নিধি। এত সফল কেরিয়ার নিয়ে বিয়ের পাঁচ বছর পর এই দম্পতির মনে হয়েছিল তাঁরা চাকরি করে সুখী নন। যেমন ভাবা তেমন কাজ। বিয়ের পাঁচ বছর পর 2015 সালে চাকরি ছেড়ে দেন তাঁরা। এবং পরের বছর বেঙ্গালুরুতে “সামোসা সিং(Samosa Singh)” দোকানের নাম দিয়ে সিঙ্গারার ব্যবসা শুরু করেন। মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে জানা গিয়েছে, এই দম্পতিই আজ প্রতিদিন 12 লক্ষ টাকা আয় করেন।

আরও পড়ুন: স্টেশনে কুলির কাজ করে ফ্রি WiFi-এ করতেন পড়াশোনা, কঠোর পরিশ্রম করে UPSC-তে সফল হয়ে এখন IAS অফিসার শ্রীনাথ

এই ব্যবসার শুরু কীভাবে হয়েছিল?

নতুন জীবনের যাত্রাপথ কিন্তু মোটেও সুখের ছিল না। সিঙ্গারার ব্যবসা দাঁড় করানোর জন্য একটি বড় রান্নাঘরের প্রয়োজন ছিল তাঁদের। তখন আর সাত পাঁচ না ভেবে অ্যাপার্টমেন্ট বিক্রি করে সেই টাকা দিয়ে বেঙ্গালুরুতে একটি কারখানা ভাড়া নেন দম্পতি। এরপর নিজেদের সঞ্চয় ব্যবহার করে সিঙ্গারার আউটলেট (Samosa Singh) শুরু করেন। এবং শীঘ্রই একটি বড় রান্নাঘর তৈরিতে 80 লাখ টাকা বিনিয়োগও করেন। এরপর ধীরে ধীরে উঠতে থাকে ব্যবসা।

কীভাবে প্রতিদিন 12 লাখ টাকা আয় হয়?

রিপোর্ট অনুযায়ী খবর, ইদানিং প্রতিদিন 30,000 সামোসা বিক্রি করে ‘সামোসা সিং’(Samosa Singh) এবং টার্নওভার প্রায় 45 কোটি টাকা। এর অর্থ হল এই দম্পতি প্রতিদিন প্রায় 12 লক্ষ টাকা আয় করছেন এই মুহূর্তে।

বিজনেসের এই আইডিয়াটা কীভাবে পেয়েছিলেন?

পড়াশোনা করার সময়ই এই ব্যবসার ধারণা শিখরের মাথায় আসে। তখনই তিনি স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (এসবিআই) শাখার বাইরে সমোসা বিক্রি করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু, নিধি তখন তাঁকে একজন বিজ্ঞানী হওয়ার দিকে মনোনিবেশ করার পরামর্শ দেন। আর এই পরিকল্পনা বাতিল হয়ে যায়। এরপর, একদিন ফুড কোর্টে একটি বাচ্চাকে সামোসার জন্য কাঁদতে দেখে শিখর নিশ্চিত হন যে তাঁর ধারণা একেবারেই সঠিক ছিল। কারণ সিঙ্গারা ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় খাবার। তাই এই খাদ্যটি বিক্রি করলে লাভ ভালোই হবে। তখন শিখর চাকরি ছেড়ে নিধিকে নিয়ে বেঙ্গালুরু চলে যান এবং নিজের আউটলেট ‘সামোসা সিং'(Samosa Singh) খোলেন।

এই ধরনের আরও আপডেট পেতে ফলো রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজকে