সামান্য কিছু বিনিয়োগেই রিটার্ন পাবেন 1,00,000 টাকা অবধি, গ্রাহকদের জন্য দুর্দান্ত প্ল্যান LIC-র

LIC Jeevan Lakshya Plan: একটি সীমিত প্রিমিয়াম প্রদানকারী প্রচলিত LIC-র জনপ্রিয় পলিসি হল LIC Jeevan Lakshya Plan। দুর্দান্ত লাভ সহ ঝুঁকিহীন বিনিয়োগের সুবিধা দেয় এই প্ল্যান। এটি মূলত একটি বার্ষিক…

Written by Laxmishree Banerjee

Published on:

LIC Jeevan Lakshya Plan: একটি সীমিত প্রিমিয়াম প্রদানকারী প্রচলিত LIC-র জনপ্রিয় পলিসি হল LIC Jeevan Lakshya Plan। দুর্দান্ত লাভ সহ ঝুঁকিহীন বিনিয়োগের সুবিধা দেয় এই প্ল্যান। এটি মূলত একটি বার্ষিক আয় প্রদান করে। যা প্রতিটি পরিবারের জন্যই অন্যতম। এরই পাশাপাশি অপ্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি কিংবা যদি পরিকল্পনার মেয়াদপূর্তির আগে পলিসিধারীর মৃত্যু হয় অথবা পলিসিধারীর জীবিতকালীন সময়েও মেয়াদপূর্তিতে একটি একক পরিমাণ টাকাও দিয়ে থাকে।

Detail of LIC Jeevan Lakshya Plan

মূল বৈশিষ্ট্য

  • এই প্ল্যানে সর্বনিম্ন 1,00,000 টাকা বিনিয়োগ করা যাবে।
  • এই প্ল্যানে সর্বোচ্চ বিনিয়োগের কোনো সীমা নেই।
  • এই পলিসির মেয়াদ 13 থেকে 25 বছর পর্যন্ত।
  • LIC Jeevan Lakshya Plan-র জন্য প্রিমিয়ামগুলি বার্ষিক, অর্ধ-বার্ষিক, ত্রৈমাসিক এবং মাসিক সময়ের মধ্যে প্রদান করা যেতে পারে।
  • পলিসির মেয়াদ যত বছরেরই হোক না কেন প্রিমিয়াম পরিশোধের মেয়াদ পলিসি মেয়াদের চেয়ে 3 বছর কম।
  • এই পলিসিতে বিনিয়োগের সর্বনিম্ন বয়স হতে হবে 18 বছর।
  • এই পলিসিতে বিনিয়োগের সর্বাধিক বয়স হতে হবে 50 বছর।
  • এই পলিসিতে দুটি অপশনাল রাইডার থাকতে পারে।দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু এবং অক্ষমতা বেনিফিট রাইডার এবং
    এলআইসি নতুন টার্ম অ্যাসুরেন্স রাইডার।

সুবিধা

  • ম্যাচিউরিটি বেনিফিট – যদি সমস্ত প্রিমিয়াম সম্পূর্ণরূপে পরিশোধ করা হয় এবং পলিসিধারী পলিসির মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত বেঁচে থাকেন। তাহলে ম্যাচিউরিটিতে বিমাকৃত অর্থের সঙ্গে অতিরিক্ত বোনাস দেওয়া হয়।
  • ডেথ বেনিফিট – এই সুবিধার অধীনে, পলিসির মেয়াদের মধ্যে পলিসিধারীর মৃত্যু হলেও বিমাকৃত অর্থের সঙ্গে অতিরিক্ত বোনাস দেওয়া হয়।
  • ট্যাক্স বেনিফিট – এই প্ল্যানের জন্য প্রদত্ত প্রিমিয়াম 80C-এর অধীনে আয়কর ছাড় পেয়ে থাকে।

পলিসিতে বিনিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্র

  • আবেদনপত্র/প্রস্তাবপত্র 300
  • পাসপোর্ট – সাইজ এর ছবি
  • ঠিকানা প্রমাণ
  • বয়স প্রমাণ
  • মেডিকেল রিপোর্ট (যদি প্রয়োজন হয়)

আরও পড়ুন: ভুল করেও করবেন না এই কাজ, চোখের নিমেষে ঘটে যাবে বড়সড় বিস্ফোরণ

মনে রাখতে হবে-

অন্তত তিন বছর ধরে প্রিমিয়াম পরিশোধ করা হলে এবং পরবর্তী প্রিমিয়াম পরিশোধ না করা হলে ওই পলিসি পরিশোধিত মূল্য অর্জন করে। এই ক্ষেত্রে, মেয়াদপূর্তির এবং মৃত্যুর ক্ষেত্রে প্রদত্ত প্রিমিয়ামের সংখ্যা এবং প্রদেয় প্রিমিয়ামের সংখ্যার একটি হিসেব করা হবে৷ আর বীমাকৃত ব্যক্তির মৃত্যুর তারিখ থেকে আয়ের মানও একই হিসেবে নির্ধারিত হবে।

  • অন্তত 3 বছরের প্রিমিয়াম প্রদানের পরে, পলিসিতে একটি ঋণও পাওয়া যেতে পারে।
  • আর কমপক্ষে 3 বছরের প্রিমিয়াম প্রদানের পরেই পলিসি সারেন্ডার করা হলে গ্যারান্টিযুক্ত ওই সারেন্ডার মূল্য পাওয়া যায়।
  • এরপর পলিসিটি বাতিল হয়ে গেলে ফের নেওয়া করা যেতে পারে।

ধরা যাক,

  • কোনো ব্যক্তি 30 বছরের মেয়াদের জন্য LIC জীবন লক্ষ্য বিমা করেছেন। তাঁর বর্তমান বয়স 25 এবং টাকার অংক 20 লক্ষ। তাঁর প্রিমিয়াম পরিশোধের মেয়াদ 27 বছর। এবার পলিসি নেওয়ার 8 বছর পর ওই ব্যক্তি মারা গেলে
  • 9 বছর থেকে বার্ষিক ওই মৃত ব্যক্তির মনোনীত ব্যক্তি পাবেন 2,00,000 টাকা করে (মূল বিমাকৃত অর্থের 10%)।
  • আর LIC Jeevan Lakshya Plan-র মেয়াদ শেষে মনোনীত ব্যক্তির প্রাপ্য অর্থের পরিমাণ হবে 22,00,000 টাকা (মূল বিমাকৃত রাশির 110%) + সাধারণ প্রত্যাবর্তনমূলক বোনাস + চূড়ান্ত অতিরিক্ত বোনাস (যদি থাকে)।

এবার যদি ওই ব্যক্তি পলিসির মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত বেঁচে থাকেন, তাহলে

  • মেয়াদ শেষে ওই ব্যক্তির প্রাপ্য অর্থ হবে 20,00,000 টাকা (অ্যাস্যুরড) + সাধারণ প্রত্যাবর্তনমূলক বোনাস + চূড়ান্ত অতিরিক্ত বোনাস (যদি থাকে)।

এই ধরনের আরও আপডেট পেতে ফলো রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজকে