Nabanna Loan Scheme: এবার প্রত্যেকে পাবেন 20,000 টাকা! বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

Nabanna Loan Scheme: সামনেই দুর্গাপুজো। এবার হুড়মুড়িয়ে শুরু হবে কেনাকাটা। আর এই মুদ্রাস্ফীতির বাজারে সার্বিক বেচাকেনার একটা বড় অংশ নিয়ন্ত্রণে করে হকাররাই। তাই এবার পুজোর আগে হকারদের পাশেই দাঁড়াবেন মুখ্যমন্ত্রী…

Written by Laxmishree Banerjee

Published on:

Nabanna Loan Scheme: সামনেই দুর্গাপুজো। এবার হুড়মুড়িয়ে শুরু হবে কেনাকাটা। আর এই মুদ্রাস্ফীতির বাজারে সার্বিক বেচাকেনার একটা বড় অংশ নিয়ন্ত্রণে করে হকাররাই। তাই এবার পুজোর আগে হকারদের পাশেই দাঁড়াবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মাথাপিছু মোটা অংকের টাকা দিয়েই শুরু হবে নবান্নের নতুন স্কিমের অভিযান। সম্প্রতি জানা গিয়েছে এমনটাই। তাই এবার পুজোর সময় থেকে হাতে টাকা না থাকলে ব্যবসার চিন্তা করার আর প্রয়োজন পড়বে না বলেই দাবি করছে ওয়াকিবহাল মহল।

বিশদে Nabanna Loan Scheme

সূত্রের খবর, রাজ্যের সব পৌরসভা ও পুরনিগম এলাকার হকারদের এই সুযোগ দেবে মমতা সরকার। গ্রামীণ এলাকার বাসিন্দারা পুর-এলাকায় হকারি করলে তিনিও লোনের এই সুবিধা পাবেন। নবান্ন পরিচালিত নতুন লোন স্কিমের মাধ্যমেই মোটা অংকের টাকা পৌঁছাবে হকারদের হাতে। জানা গিয়েছে পুজোর আগে দেওয়া হবে 10,000 টাকা। আর ঋণ পরিশোধ করার পর দেওয়া হবে আরও 70,000 টাকা। আর খুব অল্প পরিমাণ সুদে মূলত রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলি লোন দেবে রাজ্যের হকারদের। এবার বেসরকারি ব্যাংকও যাতে এই ঋণ দেয়, তা নিয়ে ভাবনাচিন্তা বর্তমান। ব্যাংক এই লোন পরিশোধের হার নির্ধারণ করেছে 7 শতাংশ।

আরও পড়ুন: এবার থেকে ট্রেনে উঠলে লাগবে না টিকিটের ভাড়া! বড়সড় ঘোষণা রেলের

হকারদের স্বাবলম্বী করে তুলতে মোট তিন দফায় 80,000 টাকা ঋণ দিচ্ছে রাজ্য সরকার। প্রথম দফায় মিলছে 10,000 টাকা। 10,000 টাকা শোধ করার পর দ্বিতীয়বারে দেওয়া হচ্ছে 20,000 টাকা। এরপর আগামী 1 বছরের মধ্যে এই ঋণ পরিশোধ করতে পারলেই ওই সংশ্লিষ্ট হকার পাবেন আরও 50,000 টাকা। আর এই টাকা পাওয়ার জন্য প্রত্যেক ইচ্ছুক হকারকে স্থানীয় পৌরসভা বা পৌরনিগম এলাকায় কর্তৃপক্ষের কাছে গিয়ে আবেদন করতে হবে। প্রত্যেক পৌরভায় এই প্রক্রিয়ার জন্য একজন করে নোডাল অফিসার নির্ধারিত করেছে সরকার (Nabanna Loan Scheme)।

নবান্ন সূত্রে খবর, ইতিমধ্যেই মোট 75,252 টি আবেদন পত্র জমা পড়েছে। এর মধ্যে 46,569 টি আবেদন অনুমোদিত হয়েছে। টাকা পেয়ে গিয়েছেন 35,338 জন হকার এখনও পর্যন্ত দেওয়া 39 কোটি 31 লক্ষ টাকা লোন দিয়েছে ব্যাংকগুলি। আরও 52 কোটি 47 লক্ষ টাকার ঋণ অনুমোদিত হয়েছে। জানা গিয়েছে, আপাতত বর্ধমান পৌরসভার মানুষ সবচেয়ে বেশি ঋণ নিয়েছেন। ব্যারাকপুর মহকুমার একাধিক পৌরসভাও এই খাতে রয়েছে (Nabanna Loan Scheme)।

এই ধরনের আরও আপডেট পেতে ফলো রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজকে