Rapid Rail Fare: বাসের চেয়েও কম ভাড়া! দেশের প্রথম মিনি বুলেট ‘RapidX’-র সুবিধা দেখলে চোখ কপালে উঠবে আপনারও

Rapid Rail Fare: মহা সপ্তমী থেকেই সাধারণ মানুষের জন্যও খুলে দেওয়া হল দেশের প্রথম দ্রুত রেলের দরজা। এই ট্রেনের নাম দেওয়া হয়েছে নমো ভারত। ট্রেনটির রুটের বিষয়ে কাজ কিন্তু খুব…

Written by Laxmishree Banerjee

Published on:

Rapid Rail Fare: মহা সপ্তমী থেকেই সাধারণ মানুষের জন্যও খুলে দেওয়া হল দেশের প্রথম দ্রুত রেলের দরজা। এই ট্রেনের নাম দেওয়া হয়েছে নমো ভারত। ট্রেনটির রুটের বিষয়ে কাজ কিন্তু খুব দ্রুত চলছে বলে খবর। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ইতিমধ্যেই সাহেববাদ থেকে এই র‍্যাপিড রেলের সূচনা করেছেন। জানা গিয়েছে, এই র‌্যাপিড ট্রেনের ভাড়া কিন্তু সাধারণ লোকাল ট্রেনের মতোই খুবই ন্যূনতম রাখা হয়েছে।

এই Rapid X ট্রেনটির বৈশিষ্ট্য রীতিমত চমকপ্রদ। এটি মাত্র 12 মিনিটে সাহিবাবাদ থেকে দুহাই অবধি পৌঁছাবে। প্রতিটি স্টেশনে 30 সেকেন্ড অবধি দাঁড়িয়ে 10-15 মিনিট অন্তর চলবে এই 6 কোচের ট্রেন। আর এর 6টি কোচের মধ্যে 5টি স্ট্যান্ডার্ড এবং 1টি প্রিমিয়াম কোচও থাকবে। ট্রেনগুলিতে সিসিটিভি ক্যামেরার পাশাপাশি জরুরি দরজাও থাকবে। এমনক ট্রেন অপারেটরের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য একটি বোতাম সিস্টেমও করা থাকবে।

কত হবে এই ট্রেনের ভাড়া?

র‌্যাপিড রেল চালু হওয়ার আগেই এর ভাড়া ঘোষণা করে দিয়েছিল NCRTC। বলা হয়েছিল, র‌্যাপিড রেলের ন্যূনতম ভাড়া হবে 20 টাকা। তবে, যদি কোনো যাত্রী সাহিবাদ থেকে দুহাই সাধারণ ক্লাসে ভ্রমণ করেন তাহলে তাঁকে 50 টাকার টিকিট কিনতে হবে। তবে, সাধারণ ক্লাসের তুলনায় প্রিমিয়াম ক্লাসে এই ভাড়া 50 টাকা বেশি 100 টাকা হবে। আর 90 সেন্টিমিটারের কম উচ্চতা সম্পন্ন শিশুরা এই ট্রেনে বিনামূল্যে যাতায়াত করতে পারবে।

এই রেলে যাতায়াতের টিকিট কীভাবে পাবেন?

এর জন্য প্ৰথমে মোবাইল অ্যাপ RapidX Connect ডাউনলোড করুন। এরপর এর ডিজিটাল QR কোড ভিত্তিক টিকিট বুক করতে পারেন।

অনলাইনে না হলে অফলাইনেও এই টিকিট বুক করা যাবে। এর জন্য প্রতিটি স্টেশনে টিকিট ভেন্ডিং মেশিনের সাহায্যে টিকিট কিনে ফেলুন।

এছাড়াও মেট্রোর মতো RapidX-এর ন্যাশনাল কমন মোবিলিটি কার্ডও দেওয়া হবে। এই কার্ডে সর্বনিম্ন 100 টাকা এবং সর্বোচ্চ 2000 টাকা রিচার্জ করে প্রয়োজন মতো ভ্রমণ করতে পারবেন।

আরও পড়ুন: এবার শুরু দুয়ারে ATM পরিষেবা! কীভাবে করবেন ব্যবহার?

উল্লেখ্য, দিল্লি এনসিআর এবং গাজিয়াবাদে র‌্যাপিড রেল সংক্রান্ত কাজ অনেকদিন ধরেই চলছে। প্রথম পর্যায়ে এই ট্রেনটি সাহিবাবাদ এবং দুহাইয়ের মধ্যে চলবে। এর পরে, পরবর্তী পর্যায়ে এটি মিরাট পর্যন্ত চালানো হবে বলে খবর।অনুমান করা হচ্ছে, র‌্যাপিড রেল চালু হলে দিল্লি থেকে মিরাট যাতায়াতকারী যাত্রীরা অনেক উপকৃত হবেন। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যাত্রীরা এই ট্রেনে 25 কেজি অবধি জিনিস বহন করে নিয়ে যেতে পারবেন।

এই ধরনের আরও আপডেট পেতে ফলো রাখুন আমাদের ফেসবুক পেজকে